পরকীয়া ও পুরুষ

ফারজানা কাজী :

পরকীয়া পুরুষ-নারী উভয়্ই করে। কিন্তু পুরুষের পরকীয়ার সংখ্যা অনেকটা বেশি। নারী মূলত হতাশা, অপ্রাপ্তি, মানসিক টানাপোড়েন, অপূর্ণ চাহিদা, না পাওয়া ইত্যাদি বিভিন্ন কারণে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। পুরুষ পরকীয়া করে তার বহুগামী মানসিকতা থেকে। শত শত বছর পূর্ব হতেই পুরুষ পরকীয়া করে। সম্ভবত পরকীয়ার জিন রয়েছে পুরুষের শরীরে। পুরুষ এক নারীতে সন্তুষ্ট থাকে না।

পুরুষের পরকীয়ার ব্যাপারটি অনেকটা স্বাভাবিক ভাবেই নেওয়া হয়। “পুরুষ-মানুষ ওরকম একটু-আধটু করবেই!” কিন্তু নারী করলেই মহাভারত যে অশুদ্ধ হয়ে যায়! এক্ষেত্রে নারীর সংখ্যা অনেক কম হওয়া সত্বেও চোখে পড়ে বেশি।

একটি মেয়ে কোনো ছেলের সাথে সম্পর্কে থাকার সময়ে অন্য কাউকে নিয়ে ভাবেনা। তার ধ্যান-জ্ঞান থাকে প্রেমিকটিকে ঘিরেই। প্রেমিকটির কিন্তু কল্পনায় আর ঘুমে-জাগরণে “এর চে’ ভালো, তার চে’ স্মার্ট” অনেক মেয়ে আসতে থাকে সকাল-সন্ধ্যা।

স্ত্রী থাকা সত্বেও একজন পুরুষের ঘনিষ্ঠতা থাকে অনেক নারীর সাথেই। স্ত্রী সংসারে সবটা দেওয়ার পরেও স্বামীটির মন ভরেনা। জড়িয়ে পড়ে অন্য কারো সাথে। এটা পুরুষের আজন্ম স্বভাব।

স্বামীর পরকীয়ার ব্যাপারটি জেনেও নারী কিন্তু মেনে নেয় বা নিতে বাধ্য হয়। নারীর মধ্যে বিশাল ক্ষমতা রয়েছে ক্ষমা করে দেওয়ার। সন্তানদের কাছে পরকীয়ায় আক্রান্ত স্বামীকে মহান, স্নেহময় পিতা হিসেবে পরিচিত করে। কিন্তু স্ত্রী যদি পরকীয়া করে, তবে স্বামীর কাছ হতে ক্ষমা পাওয়া তো দূরে কথা, উল্টো খুন হতে হয়। নয়তো চুড়ান্ত নির্যাতনের শিকার হতে হয়। সন্তানদের কাছে পরিচয় পায় নষ্টা-ভ্রষ্টা মা হিসেবে।

আসলে পুরুষের কোনো কিছুতেই বাধা নেই। তার জন্য সব কিছু বৈধ। অপরাধ যতো নারীর! নারী হয়ে জন্মানোটাই যে দোষের!

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।