সর্বশেষ সংযুক্তি
সুত্রপাত / নারী / নারী মানেই পুরুষের চোখে বেশ্যা

নারী মানেই পুরুষের চোখে বেশ্যা

ফারজানা কাজী :

‘নারী স্বাধীনতা’ কথাটি শুনলে আজও পরিবার, সমাজ আঁৎকে ওঠে। কোনো মেয়ে হঠাৎ অধিকার সচেতন হলে, স্বাধীনচেতা হয়ে উঠলে সে হয়ে যায় নষ্টা। কিংবা কোনো বাজে, বেয়াদপ মেয়ে তার কান ভাঙানি দিয়েছে- এমন অভিযোগও শোনা যায়। যেন নারী তার নিজের অধিকার, স্বাধীনতা পুরুষের কাছে চিরকালের জন্য বিকিয়ে দিয়েছে, তাই এর দাবি করা কুৎসিত অসভ্যতা! ‘নারী স্বাধীনতা’ কথাটি শুনলে আজও পরিবার, সমাজ আঁৎকে ওঠে। কোনো মেয়ে হঠাৎ অধিকার সচেতন হলে, স্বাধীনচেতা হয়ে উঠলে সে হয়ে যায় নষ্টা। কিংবা কোনো বাজে, বেয়াদপ মেয়ে তার কান ভাঙানি দিয়েছে- এমন অভিযোগও শোনা যায়। যেন নারী তার নিজের অধিকার, স্বাধীনতা পুরুষের কাছে চিরকালের জন্য বিকিয়ে দিয়েছে, তাই এর দাবি করা কুৎসিত অসভ্যতা!
পরিবারের কোনো মেয়ে অন্যের অধিনতা না মানলে, নিজের মতো বাঁচতে চাইলে মা-বাবা, আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়। যেন সে আকাশের চাঁদ ছোঁয়ার বায়না ধরেছে।

চাঁদ-তারা ছোঁয়ার বাসনা হয়তো মেনে নেওয়া যায়, কিন্তু নারীর স্বাধীনতা অর্জন আদৌ সহজে মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। সংসারে ‘ভালো’ মেয়ে হয়ে থাকতে চাওয়া মেয়েগুলো সারাজীবনই পুরুষের প্রিয় পরগাছা হয়ে বাঁচে। যে নারী তার চরিত্রে ‘মন্দ’ দাগ লাগানোর সাহস রাখে, সেই পারে স্বাধীনতার স্বাদ পেতে। আজও বেশির ভাগ পুরুষ নারীর স্বাধীনতা বলতে মনে করে তার যৌন স্বাধীনতা। সামাজিক, অর্থনৈতিক স্বাধীনতার মতো নারীর যৌন স্বাধীনতারও প্র্রয়োজন রয়েছে। তার মানে এই নয়- যার তার সাথে নারী বিছানায় চলে গেলো! এটি নারীর একান্ত ব্যাক্তিগত ইচ্ছে বা অনিচ্ছে। কারো আহ্বানে হ্যাঁ বা না বলার অধিকার। অবশ্য, বিছানাবাদীরা মনে করে নারী ঘর থেকে বাইরে পা রাখলেই যে কারো সাথে শুয়ে পড়তে পারে, কিংবা ঘরের নারীকে যখন তখন বিছানায় পাওয়া নাও যেতে পারে। তাই মাথামোটা ঘিলুহীন পুরুষ নারীর স্বাধীনতায় এতো উন্মাদ হয়ে যায়। নারীকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে না পেরে তাকে নষ্টা, ভ্রষ্টা, বেশ্যা খেতাব দিয়ে দেয়। অশ্রাব্য গালি দিয়ে মনের খেদ ঝাড়ে। পুরুষ অভিভাবকের নিয়ন্ত্রণ ছাড়া একা একটি নারী মানেই পুরুষের চোখে বেশ্যা। কিন্তু পুরুষটি জন্মের পর থেকেই স্বাধীনতা ভোগ করে এসেছে। তার সে স্বাধীনতা সমাজ স্বীকৃত।

রাষ্ট্র নারীর স্বাধীন স্বত্তা স্বীকার করলেও নারীকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য রয়েছে পরিবার ও সমাজ। নারীর স্বাধীনতা চায় না সমাজ। নারীকে পুরুষ করে রাখতে চায় অসার, অপদার্থ, কাঠের পুতুল। তাই যে নারী নিয়ন্ত্রণ মানেনা, সে হয় বেশ্যা। চিরকাল ধরে অতি স্বাধীনতা ভোগ করে আসা পুরুষগুলো যৌনতা ছাড়া আর কিছু মগজে ঢোকাতে পারে না। মেরুদণ্ড সোজা করে দাঁড়ানো, পুরুষকে তোয়াক্কা না করা একজন নারীকে তাই ছুঁড়ে দেওয়া হয় বেশ্যা গালি। পুরুষ জ্ঞান হওয়ার পর থেকেই বেশ অধিকার সচেতন। সে সজ্ঞানে তার অধিকারের আপব্যাবহার করে থাকে। তবে কি স্বাধীন পুরুষ অজন্ম বেশ্যা? তাই কি সে মনে করে নারীও তার মতোই সেচ্ছাচারী হবে স্বাধীনতা পেলে?  পুরুষেরই লালসার কারণে, পুরুষের প্রতারণার শিকার হয়ে নারী বেশ্যা হযেছে যুগে যুগে। কাছের পুরুষেরাই ছলে-বলে-কৌশলে নারীকে বাজারে বেচে দিয়েছে, পুরুষ কামনা মিটিয়ে নিয়ে নাম দিয়েছে বেশ্যা। বেঁচে থাকার দায়ে নারী বাধ্য হয়েছে শরীর বেচতে। কিন্তু যে পুরুষ নিজের লালসায় শরীর বিকোয় তাকে কেন কোনো নাম দেয়নি সমাজ? নারীকে নিয়ন্ত্রণে রাখার হাজারো কৌশল রয়েছে পুরুষের কাছে। তার মধ্যে ধর্ম একটি বড় হাতিয়ার। তবু মাথা উঁচু করে পুরুষতন্ত্রকে তোয়ক্কা না করেই সামনে এগিয়ে চলছে নারী। আপাদমস্তক পঙ্কিলতায় ডুবে থাকা যৌন ইতর পুরুষের মুখে গালি ছাড়া আর কীই বা থাকবে?

লেখক: নারী অধিকার কর্মী।

শেয়ার করুন
  • 54
    Shares