Home / বুলেট ‍কিংবা কবিতা / টাইম ফুল।। আকিব শিকদার

টাইম ফুল।। আকিব শিকদার

আকিব শিকদার :

বারান্দার ঝুলন্ত টবে ফুটেছে টাইম ফুল। ঘাসের ডগায়
গোলাপ-আকার মেরুন ফুলগুলো
সকাল দশটায় ফুটে, চুপিসারে চুপসে দুপুরের প্রথম ভাগেই।
এই ফুল আমাদের উঠোনে, ভিটের পাশে
যেখানে টিনের চালের পানি ঝরে, সেখানে ফুটতো অনেক।
বাবা, তখন সাইকেল হাতে দাড়াতে আঙিনায়। ক্রিংক্রিং
বেল বাজিয়ে বলতে- ‘দেড়ি হয়ে গেলো, কৈ-রে..! আয় তারাতাড়ি’।
আমি বইপত্র গোছানোতে ব্যাস্ত, আর মা আমার চুলে
বাধছেন ঝুটি চিরুনী চালিয়ে- তারপর দুটো ক্লিপ।
বাবা তুমি প্রাইমারী মাস্টার, আমি তোমার স্কুলে
ছাত্রী চতুর্থ শ্রেনীর। উঠোনের কোন থেকে দুটো ফুল ছিড়ে
কানে গুজে ছুটলাম, সাইকেলে উঠলাম।
তখন মায়ের গলা- ‘গ্লাসভরা দুধ, খেয়ে তো গেলি না ?’ আমাদের
ছাই রঙা গাভীটা দিতো দুধ এক হাড়ি, আর তার বাছুর কে
রাখতো পারিপাটি
জিহ্বায় চেটে। আহা কী মাতৃত্ব ! মায়েদের কতো মায়া !

যেদিন আমার বিয়ে ঠিক, সবাই খুশি, বিদেশে
চাকুরে ছেলে,অঢেল টাকা।
মা,তুমি চুপচাপ ছিলে কেনো বলতো…? মেয়ে মানুষের জাত,
তাই বুঝি যথার্থ বুঝে ছিলে মেয়েদের মনস্তত্ব।
টাইম ফুল সময় ধরে ফুটে,সময় ধরেই
ঝরে । আমার যৌবন, মাতৃত্ব, সংসার…! সময় গেলে তো আর
হবে না সাধন।

তোমাদের মেয়ের জামাই
বিয়ের প্রথম মাসে গেলো ভিনদেশে। তিনটি বছর পার, তবু
দেশে ফিরবার নাম নেই, সে দেশের গ্রীনকার্ড পেয়ে
তবেই ফিরবে, জানি না লাগবে কতো দিন।
তুমি তো জানো না মা, জানালার গ্রীল ধরে দাড়িয়ে
দুরের আকাশ দেখি। দেখি উড়ে যাওয়া মেঘ, পাখি আর বিমান।
বড়ো একা একা লাগে, মানুষের সান্নিধ্যের অভাব
কি যে যন্ত্রনার, কী করে বুঝাই…! আমি যেন পৃথিবীর বিলুপ্তপ্রায় সেই প্রানী, বেঁচে আছি
একটি মাত্র – একাকী।
খুব জাগে সাধ,ফিরে যাই শৈশবে। বাবার সাইকেলে
ক্রিংক্রিং। তোমার স্নেহে ঝুটিবাধা চুল, কানে গুজা টাইম ফুল।

সোনার চুড়ি, হিড়েকুচি নেকলেস, বিদেশি প্রসাধন
যেন আমার হাতের শিকল- যেন আমাকে লোহার খাচায়
যাপটে ধরে,অজগর হয়ে খেতে চায় গিলে।
এমন জীবন আমি চাইনি বাবা,এমন জীবন আমি
চাইনি তো মা, এমন জীবন আমি চাই না ইশ্বর।

Comments

comments

Check Also

অন্তঃপুরের প্রেম ।। জেসিফার রহমান

জেসিফার রহমান: শুরুটা ছিল এমন, অপলক দৃষ্টি নন্দন নীরবতায় কথোপকথন অক্ষুণ্ণ যেমন শ্রোতা ঘুম ঘুম …