Home / রাজ্যের যুক্তি-তর্ক / গ্রাম মরে যাবে! শহর বেঁচে থাকবে? ।। তানভিরুল মিরাজ রিপন

গ্রাম মরে যাবে! শহর বেঁচে থাকবে? ।। তানভিরুল মিরাজ রিপন

তানভিরুল মিরাজ রিপন :
আমলাতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা,রাজধানীমুখী এলিট সমাজ,এবং রাজধানী কেন্দ্রীক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হওয়াতেই দেশের নিম্নআয়ের মানুষের মৌলিক চাহিদা সংকট বাড়ছে।সমাধানের কোন চেষ্টা আমরা দেখতে পাচ্ছি না,গনতন্ত্র আমাদের দেশে বারেবারে বাধা পেয়েছে,ইয়ুরোপ, আমেরিকাতে গনতন্ত্র ব্যবস্থা অনেক পুরানো তাই তাদের সুশাসন প্রতিষ্ঠা অতোটা আহামরি কিছু না।বাংলাদেশ রাষ্ট্রে বয়স ১৯৭১-২০১৭ এ যতোটা বছর হয় ১৯৭২ সন থেকে গনতান্ত্রিক ব্যবস্থা চালু হয়,এই প্রায় অর্ধশত  বছরের গণতন্ত্র আমাদের কি সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছে?কতোটকুন জনগনমুখী হলো গণতন্ত্রের নেতাকর্মীরা?শহরকে বিস্তারিত উন্নয়ন তুলে দিয়ে গ্রাম গুলোর অবস্থা খুবই নাজুক হয়ে গেলো। এবং এনজিও গুলো ইচ্ছেমতো প্রোপাগান্ডা সহ সুযোগ লুটে নিচ্ছে।

এর সমাধান পেতে হলেঃ
১)গ্রামেও শহরে সেবাপ্রদান করতে হবে,
২)গ্রামের প্রতি মানুষের যে অনীহা সে অনীহা মুক্ত করার জন্য গ্রামমুখী করতে হবে জনগনকে। এবং তার গ্রামে সকল প্রকার মৌলিক ও ঐচ্ছিক সেবাপ্রদান করতে হবে।
৩)জনগনবান্ধব জনপ্রতিনিধি নির্বাচনের জন্য সচেতন নাগরিক মহলে প্রচারনা চালাতে হবে।
৪)সর্বোপরি সকল ধরনের নিরাপদ ব্যবস্থা, নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।
৫)শেকড় প্রীতি  প্রজন্মের অন্তরে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য প্রচারণা চালাতে হবে।
৬)সকল চাহিদা পূরনে সক্ষম এমন অর্থনৈতিক কাঠামো নিশ্চিত করতে হবে।

যদি সে ব্যবস্থা না করা হয়?

১)দেশের নিম্ন আয়ের জনগন আর ধনবান লোকেদের ফারাক বাড়বে।
২)বর্নবাদ ও শ্রেণী বৈষম্য সৃষ্টি হবে।
৩)জনপ্রতিনিধিদের ধারা বৈষম্যের শিকার হবে।
৪)জনপ্রতিনিধি, এবং কেন্দ্রীয় শাসকের সাথে জনবান্ধব সম্পর্কের দূরত্ব বাড়বে।
৫)শহরের সামাজিক বৈষম্য বাড়বে,পাশাপাশি আইনের প্রতি অশ্রদ্ধা বাড়বে।
৬)নিরাপত্তা সংকটে ভোগবে।
৭)উদ্দেশ্যপূর্ণ চাহিদা পূরন করতে সরকার হিমশিম খাবে।
৮)শহরে পরিবেশের বিনষ্ট হবে।
৯)সন্ত্রাসি কর্মকান্ড,এবং ধর্মীয় অন্ধতা বাড়বে।
১০)কৃষি নির্ভর অর্থনৈতিক সমাজব্যবস্থার বিলুপ্তি হবে।যেটি এই মুহুর্তে বাংলাদেশে সৃষ্টি হওয়া মানে উন্নয়ন ত্বরান্বিত হওয়া।
১১)বিচার ব্যবস্থা,এবং সকল আমলাতান্ত্রিক কাজ বা সেবার গতি কমে আসবে।যার কারনে ক্ষমতার অপব্যবহার বা অপপ্রয়োগ বাড়বে।ফলে দুর্নীতি বাড়বে।
১২)শিক্ষাব্যবস্থার উন্নতি সাধন হলেও কর্মসংস্থান সৃষ্টি বা চাহিদাপূরণে সক্ষম হবে না।
১৩)সকল ধরনের সংকটের স্থায়ী সমাধানে সরকার বিপাকে পড়ে যাবে।

লেখক: ছাত্র, গণ সাংবাদিকতা ও সম্প্রচার প্রকৌশল বিভাগ ।

Comments

comments

Check Also

সুসময়ে গান গাওয়া অসময়ে লাফ দেওয়া ।। ইমরান হোসেন মুন্না

ইমরান হোসেন মুন্না: কাল্পনিকার সাথে আমার সম্পর্কে হলো প্রায় দুই যুগ ধরে পাড়ার শিশু হতে …