বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাসগুলো গ্যাস্ট্রিকময়

শিপ্ত বড়ুয়া :

সকালে ৭.০০ টা অথবা ৮.০০ টার দিকে ঘুম থেকে উঠি। ঘুম থেকে উঠার পর প্রথম কাজ হলো একটি গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ খাওয়া। সারাদিন নানান ব্যাস্ততায় নিজের ভুড়িকে গুঁতাগুঁতি মুক্ত রাখতেই এই পন্থা অবলম্বন করি। কয়েকদিন আগে কথা হয়েছিলো আমার এক বড় ভাই ডাক্তারের সাথে, আমার পেটে গজব পড়ার কারণ কি জিজ্ঞেস করেছিলাম! সহজ সাপটা উত্তর দিলো। উত্তর কি?

প্রথম সমস্যা হলো কি, ঠিক মত খাওয়া-দাওয়া না করা। সকালের ভাত দুপুরে খাওয়া, দুপুরের ভাত রাতে খাওয়া, ছাড়াও বাইরের ভাজা-পোড়া খাওয়াও গ্যাস্ট্রিক হওয়ার প্রধান কারণ বললেন তিনি। আমিও অবলীলায় মেনে নিলাম। কারণ সত্যিই আমি এরকম অনিয়ম করি। কিন্তু কেনো করি? কারণ কি?
ভুলে গেলে চলবে না ঘটনার পেছনেও ঘটনা থাকে। রহস্য অনেক। আমার গ্যাস্ট্রিক হওয়ার পেছনে যে অনেক দূরত্ব আছে তা বলার বাকি!

বর্তমানে আমার অনার্স ২য় বর্ষ শেষ হলো মাত্র। তার মানে ১.৫ বছর বিশ্ববিদ্যালয় জীবন কাটিয়েছি। আসা যাক মূল কথায়, এইস.এস.সি পরীক্ষায় খুব ভালো রেজাল্ট না হওয়ায় জীবনটা পিছুটান নিয়ে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ময়। প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় মানেই তো শিক্ষা ব্যাবসা। “টাকা যার শিক্ষা তার” এটাই প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের মূলমন্ত্র। এক কথায় কর্পোরেট। কিছুই করার নেই, আমাদের রাষ্ট্র শিক্ষা খাতে ৩% বাজেট প্রণয়ন করে বলেই এই অবস্থা। এরপরেও আসছি……

সব ঘটনা ঘটনার সাথে মিলে যায়। একটা ঘটনা আমি কিছুতেই মিলাতে পারি না! বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস শিডিউলগুলো এমনভাবে বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ করেছে যা প্রত্যেকটি ছাত্র-ছাত্রীর পেটে গ্যাস্ট্রিক এর বাসা বাঁধবে। শনিবার সকাল ৯.০০ টা থেকে ১১.০০ টা পর্যন্ত ক্লাস হলে তার পরের দিন বন্ধ। আবার সোমবারে ক্লাস হলো দুপুর ১.০০ টা থেকে ৩.০০ টা পর্যন্ত। এক কথায় একেক দিন একেক সময় ক্লাস শিডিউল। আপনি ক্লাস রুটিনটি একবার দেখে নিলেই বুঝে যাবেন যে পুঁজিবাদের আগ্রাসন আজ প্রত্যেকটি ছাত্র-ছাত্রীর পেটে ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এই ক্লাস করতে গেলেই আপনার নিয়মিত খাবার সূচি একেকদিন একেক রকম হবে। প্রথমেই বলেছিলাম একেক দিন খাবার সূচি একেক রকম হওয়া মানেই গ্যাস্ট্রিক।

এবার বুঝুন তাহলে ১.নং পেরার আমার সকালের গ্যাস্ট্রিক ঔষধ খাওয়ার উৎপত্তিস্থল কোথা থেকে! মাঝেমধ্যে আমার সন্দেহ হয় বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ কি গ্যাস্ট্রিকের ঔষুধ কতৃপক্ষের সাথে আপোষ করে কিনা! পুঁজিবাদের আগ্রাসন যে কিভাবে সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদেরও আক্রমণ করছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। পুঁজিবাদ কি? তা বুঝে বিশ্লেষণ করা খুব একটা কঠিন নয়। উপরের সব কিছু বিশ্লেষণ করলে বুঝতে পারবেন ক্লাসগুলো গ্যাস্ট্রিকময়।

লেখক: সম্পাদক, আমারে কলম ।

 

Comments

comments

Updated: ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১২ টা ২৪ মিনিট, অপরাহ্ণ — ১২:২৪ অপরাহ্ণ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আমার কলম © ২০১৭, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। লেখা পাঠানোর ঠিকানা: editor@amarkolom.com