সুত্রপাত / ভ্রমণ কাহিনী / শাপলার রাজ্য সাতলা

শাপলার রাজ্য সাতলা

আরাফাত এইচ রাশেদ:

“তুমি সুতোয় বেঁধেছো শাপলার ফুল নাকি তোমার মন” হ্যাঁ শাপলার কথা বলবো শাপলার রাজ্যের কথা বলবো।গ্রামের নামম সাতলা,শাপলার স্বর্গরাজ্য। বরিশাল সদর থেকে ৬০ কিঃমিঃ দূরে উজিরপুর উপজেলায় সাতলা ইউনিয়নের অবস্থান।কয়েক হাজার বিঘা নিয়ে এ বিল।লাল শাপলার রঙ্গিন রূপ আপনাকে শুধু মগ্ধ করবেনা,স্তম্ভিত করে দিবে। সবুজের মধ্যে অসংখ্য লাল ও সাদা বৃত্ত দেখে দুরূহ হয়ে উঠার মত আসলে জিনিষ গুলো কি?দূরত্ব কমার সাথে সাথে একসময় স্পষ্ট হয়ে উঠে ফুলের অস্তিত্ব,আগাছা আর লতাপাতায় ভরা বিলের পানিতে সহস্র লাল ও সাদা শাপলা।সূর্যের সোনালী আভা শাপলার পাতার ফাঁকে ফাঁকে পানিতে প্রতিফলিত হয়ে কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেয় এর সৌন্দর্য। বিলের লাল শাপলার নৈসর্গিক সৌন্দর্য দেখে আপনার চোখ জুড়িয়ে যাবে।মনোমুগ্ধকর এ বিলের শাপলা দেখতে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ভ্রমণ পিপাসু ও প্রকৃতি প্রেমীরা ছুটে আসছেন সাতলায়। বিলের যতো ভেতরে এগুতে যাবেন ততোই লালের আধিক্য।

একসময় মনে হবে শাপলার রাজ্যে বন্দি হয়ে আছেন আপনি। আশপাশ দিয়েই একটু পরপরই শাপলা গাছ ও আগাছা ঠেলে নৌকা নিয়ে যাচ্ছেন অনেকে। এদের অনেকেই বিল থেকে শাপলা তুলে জমা করছেন নৌকায়। এ বিলের শাপলা তুলে স্থানীয় বাজারে বিক্রি করে ওইসব এলাকার অসংখ্য পরিবার জীবিকা নির্বাহ করছেন। সাধারণত আগস্টের শেষের দিকে শুরু হয়ে সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে এই বিলে লাল শাপলা ফুল ফোটে। আর শাপলার আসল সৌন্দর্য উপভোগের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত সময় হলো ভোর ৫টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত। শাপলার প্রকৃত সৌন্দর্য ও ফুটন্ত অবস্থায় পেতে অবশ্যই এই সময়টাতে আপনাকে ঘুরতে হবে, কারণ সূর্যের উপস্থিতির সঙ্গে সঙ্গে শাপলা তার আপন সৌন্দর্যকে গুটিয়ে নেয়। তাই ফুটন্ত শাপলা পেতে হলে বিলের আশপাশে রাতযাপন করে অবশ্যই খুব ভোরে শাপলার বিলে যেতে হবে।

লেখক: উদীচী কর্মী।

Comments

comments