সুত্রপাত / দর্শকের চোখে / মৌ লেখনীর মাধ্যমে বেঁচে থাকবে

মৌ লেখনীর মাধ্যমে বেঁচে থাকবে

লাবণী মন্ডল:

বৃষ্টি মাসের প্রথম দিন(১লা অাষাঢ়); ১৬ জুন,টাংগাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলার সাদামাটা কোয়ার্টারে জন্ম।
পিতা মো: অানিছুর রহমান ও মা শবনম খানম। পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অনুষদে বর্তমানে অধ্যয়নরত। বর্ষার প্রেমধারা, শরতের শশী, বসন্তের সৌন্দর্য অবলোকনের মাধ্যম খুঁজে পান-বইয়ের ঘ্রাণে। বইয়ের প্রতি অনুরাগ থেকেই লেখালেখির সূচনা। সৃষ্টিসুখে মাতোয়ারা এই গাল্পিক লিখছেন স্কুলজীবন থেকেই। প্রকাশ করেছেন ২০১৬ সালে; অনলাইন ও লিটলম্যাগ মাধ্যমে। হতাশা এবং সম্ভাবনাকে একসাথে নিয়ে সম্ভাবনার পাল্লা ভারী করে জীবনের জয়গানে ডুবে থাকেন। জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকেই সত্যি মনে করেন ; যে মুহূর্তে অামাদের চারপাশে ঘটে যাওয়া গল্প, কল্পনাশক্তির ক্যানভাসে অাঁকা ভাবনাগুলো-লেখনশৈলীর মধ্যে প্রাণশক্তির সঞ্চার করে বেঁচে থাকে। নিজের মধ্যে জমিয়ে রাখা গল্প, অভিব্যক্তি, সদ্য অঙ্কুরিত সবুজ চারার মত কথামালার প্রেম উৎফুল্ল রাখতে-সদা প্রাণবন্ত, হাসিখুশি,গল্পপটু মৌ লেখনীর মাধ্যমে সকলের মধ্যে বেঁচে থাকতে চান।

তার প্রথম একক গল্পগ্রন্থ “অচেনা প্রতিবিম্ব”।
রাতের অাকাশের মতো সুনসান নিরবতা চারদিকে। কুতুব অালীর নিয়ে অাসা খবরগুলো যেন দুঃশ্চিন্তার পাল্লা অারো ভারি করে দিল। চারদিকে গোলাগুলির শব্দ। সুফিয়া বেগম জায়নামাজে তসবি হাতে নিয়ে বসে অাছেন। জব্বার অালী অাজ নীরব, নীরব তার চোখ; মুখের ভাষা। গ্রামে পাকিস্তানি প্রবেশের খবর শোনার পর থেকে কিছুই খান নি। খুব মায়া হচ্ছে তার পৃথিবীর জন্য। বয়স বাড়লে মানুষের পৃথিবীর প্রতি মায়া বাড়ে, জব্বার অালী মরতে চান না। নিজের স্ত্রী অার পুত্রকেও হারাতে চান না। কুলসুমের ব্যাপারে ভাবতে পারছেন না। তার মাথায় অাসছে না -ভাবা উচিত কিনা!

এরকম আরেকটি বই রণজিৎ। বইটিকে অসাধারণ করে তুলেছে বইটির শব্দশৈলী। আপনিও পড়ে দেখতে পারেন এই বইটি।

Comments

comments