সুত্রপাত / দর্শকের চোখে / এক ভিন্ন নওশাবার গল্প || আরাফাত এইচ রাশেদ

এক ভিন্ন নওশাবার গল্প || আরাফাত এইচ রাশেদ

ঢাকা এ্যাটাকের প্রেগন্যান্ট মেয়েটার কথা মনে আছে? কয়দিন থেকেই নওশাবাকে নিয়ে লিখবো লিখবো ভাবছিলাম, তার কিছু কিছু জিনিষ আমার খুব ভালো লাগে। ভাবতে পারেন আমি হয়তো তার অভিনয়ের কথাই বলবো, না অভিনয় না। অভিনয়ের বাহিরে কিছু কথা বলবো। আমাদের দেশে অভিনেতা অভিনেত্রীরা সবসময় অভিনয় আর নিজের জীবন নিয়েই ব্যস্ত থাকে, সমাজ দেশ সম্পর্কে এমন সচেতন অভিনেত্রী আমি খুব কম ই দেখেছি। একজন সেনাবাহিনীর অফিসারের মেয়ে সে, এদেশে এরকম অফিসারের অনেক মেয়েই আছে যারা গড্ডালিকা প্রবাহে গা ভাসিয়ে দেয়। দেশ সমাজ রাষ্ট্র নিয়ে তাদের চিন্তা ভাবনার ফুসরত কই। কিন্তু নওশাবা এক্ষেত্রে সম্পূর্ণ ভিন্ন, কখনো ক্যান্সারে আক্রান্ত কোমলমতি শিশুদের পাশে দাঁড়িয়েছেন,কখনোবা নিজেই আইসক্রিম ভ্যান চালিয়ে উপস্থিত হয়েছেন বস্তির শিশুদের মাঝে, মেয়ে প্রকৃতিকে সঙ্গে নিয়ে ঘুরে ঘুরে কাওরানবাজার,পল্টন,শাহবাগ,কমলাপুরের ঘুমন্ত মানুষের শিয়রের পাশে রেখে এসেছেন ঈদ কার্ড,পোশাক,বেলুন,পুতুল ইত্যাদি। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে যখন সারাদেশ উত্তাল, সেই দাবিতে এই নওশাবাও রাস্তায় নেমেছিলেন।

পথের শিশুরা যখন বড় বড় শপিং মলের দিকে হা করে তাকিয়ে থাকে, যেখান থেকে কিছু কেনা তো দূরের কথা ঢুকার সাধ্যও নাই, নওশাবা তাদের নিয়ে যেতেন শপিংমলে কিনে দিতেন জামাকাপড়,চুড়ি,খেলনা ইত্যাদি। এমন অনেক আছে যাদের জীবনে কোনো স্বপ্নই ছিলো না, এই নওশাবা তাদের স্বপ্ন দেখিয়েছে। শুধু স্বপ্ন দেখানোই না,তাদের স্বপ্নকে এগিয়ে নিয়েছেন বাস্তব জীবনে যারা অনেকেই এখন সফল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ড্রইং এন্ড পেইন্টিং বিভাগ থেকে পাশ করা এ অভিনেত্রী অভিনয়ের ব্যাপারেও খুব সচেতন, বিভিন্ন ক্রিয়েটিভ নাটক সিনেমায় আমরা তাকে দেখতে পাই। ব্যক্তি জীবনে দুই সন্তানের জননী এই মানুষটার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি এবং তিনি যেনো তার এই সমাজ দেশ রাষ্ট্র নিয়ে ভাবনাটাকে এগিয়ে নেন।মানুষের পাশে আরো ভালোভাবে দাঁড়াতে পারেন সেই আশাবাদ ব্যক্ত করছি। শুভকামনা রইলো।

লেখক: উদীচী কর্মী।

Comments

comments

error: Content is protected !!